১১ মাস মহাশূন্যে ভেসে নতুন রেকর্ড রুশ নারীর

১১ মাস মহাশূন্যে ভেসে নতুন রেকর্ড রুশ নারীর

বিশ্বে যা-কিছু মহান সৃষ্টি চির-কল্যাণকর অর্ধেক তার করিয়াছে নারী, অর্ধেক তার নর।
বিশ্বে যা-কিছু এলো পাপ-তাপ বেদনা অশ্রুবারি অর্ধেক তার আনিয়াছে নর, অর্ধেকতার নারী। বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসমামের সাম্যবাদী কবিতাটি যতই দিন যাচ্ছে ততই সত্যি হচ্ছে।

মহাশূন্যে টানা ৩২৮ দিন থেকে রেকর্ড গড়লেন রাশিয়ার নারী প্রকৌশলী ক্রিস্টিনা কোচ। নারী হিসেবে সর্বোচ্চ সময় মহাকাশে থাকার রেকর্ড এখন তার দখলে। ২০১৯ সালের মার্চ মাসে মহাকাশের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছিলেন এই নারী নভোচারী।

এর আগে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে কেউ কাটান ২৮৯ দিন, তো কেউ ৩২৮ দিন। গত বছর সবচেয়ে বেশি সময় মহাশূন্যে ভেসে থাকার রেকর্ড ছিল মার্কিন নভোচর পেগি হুইটসনের। তিনি কাটিয়েছিলেন ২৮৯ দিন।

ক্রিস্টিনা কোচ ও ইউরোপীয় মহাকাশ স্টেশন কমান্ডার লুকা পারমিতানো সোয়ুজ ক্যাপসুল মহাকাশযানে করে কাজাখস্তানের দক্ষিণ-পূর্ব দিকে নামেন। বছরের সিংহভাগ আইএসএসে কাটিয়ে মাটি স্পর্শ করার সঙ্গে সঙ্গে আবেগে কেঁদে ফেলেন তিনি।

সয়ুজে চড়ে কাজাখস্তানের ভূমি স্পর্শ করে তিনি বলেন, ”এই মুহূর্তে আমিই সবচেয়ে সুখী মানুষ। সব স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। ভবিষ্যৎ প্রজন্মকেও অনুপ্রাণিতে করতে চাই। আমি বিস্মিত, আনন্দিত ও আবেগে পরিপূর্ণ।’

আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে থাকার অভিজ্ঞতা নিয়ে ক্রিস্টিনা বলেছেন, আমি ছোটবেলা থেকে যেভাবে আকাশ দেখে এসেছি, তার ভিত্তিতে অনেক স্বপ্ন তৈরি হয় হৃদয়ে। সেই স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। আমার পূর্বসূরীদের দেখানো পথ অনুসরণ করেছি আমি।

ক্রিস্টিনা কোচ মহাশূন্যে যে সময় ধরে ভেসে ছিলেন, তার মধ্যে ৫২৪৮ বার পৃথিবীর নিজের প্রদক্ষিণ ও পৃথিবী থেকে চাঁদে ২৯১ বার যাতায়াত হয়ে যায়।

এ সময়ের মধ্যে শুধু মহাকাশচারী হিসেবে অভিজ্ঞতা অর্জনই নয়, আইএসএসে-এ বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ কাজও তাকে করতে হয়েছে। খারাপ হয়ে যাওয়া পাওয়ার কন্ট্রোল ইউনিট ঠিক করার জন্য অন্তত ৭ ঘণ্টা মহাকাশ স্টেশনের বাইরে কাটাতে হয়েছে তাকে।

নভোচারী ক্রিস্টিনা কোচ

সেসময় অবশ্য সঙ্গী ছিলেন জেসিকা মেয়ার। তারাই প্রথম জুটি, যারা কোনও পুরুষ সঙ্গী ছাড়াই সময় কাটিয়েছেন আন্তর্জাতিক স্পেস স্টেশনে।

সেই অভিজ্ঞতা সম্পর্কে ক্রিস্টিনা বলেন, আমরা যখন শুনলাম যে স্টেশনের বাইরে গিয়ে কাজ করতে হবে, তখন ভীত হয়ে পড়ছিলাম। আমি আর জেসিকা হেন্ডেলে ধরে বাইরে থেকে গিয়ে শুধু পরস্পরের দিকে তাকিয়ে ছিলাম। সেটা আমাদের জীবনে এক বিশেষ ও বিস্ময়কর সময় ছিল। সেদিনের অভিজ্ঞতা কখনও ভুলার মতো নয়।

তবে সব মিলে সর্বোচ্চ মহাকাশে থাকার রেকর্ড এখনও পেগি উইটসনের দখলে। তিনি তিনবারে মোট ৬৬৫ দিন অতিবাহিত করেছেন মহাশূন্যে।

এদিকে ক্রিস্টিনা কোচ কিন্তু মার্কিন নভোচর স্কট কেলির রেকর্ড ভাঙতে পারেনি ক্রিস্টিনা। ২০১৫-১৬ সালে কেলি মহাকাশে কাটিয়েছিলেন ৩৪০ দিন। অর্থাৎ পৃথিবীতে ছিলেন মাত্র ১৫ দিন। ক্রিস্টিনা তার চেয়ে মাত্র ১২ দিন পিছিয়ে থেকেও আরেকটি রেকর্ড গড়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *