হার্টের চিকিৎসায় নজির গড়লো বাংলাদেশ

হার্টের চিকিৎসায় নজির গড়লো বাংলাদেশ

সাদিয়া জাহান: বাংলাদেশে প্রথমবারের মত ২-৩ ইঞ্চি ছিদ্র করে এমআইসিএস (MICS ) পদ্ধতিতে হার্টের ডাবল ভাল্ব প্রতিস্থাপন করেছেন একদল তরুণ চিকিৎসক।

যার নেতৃত্বে ছিলেন দেশের কনিষ্ঠ কার্ডিয়াক সার্জন ডা. আশ্রাফুল হক সিয়াম।

এ পদ্ধতির অপারেশনে মাত্র ৫ দিনে সুস্থ হবার পাশাপাশি রোগীর রক্তক্ষরণ ও ব্যথা কম অনুভব হয়।

বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় এক-তৃতীয়াংশ খরচে বাংলাদেশে পাওয়া যাবে এ চিকিৎসা সেবা।

ডা. আশ্রাফুল হক সিয়াম আলোচনায় আসেন ২০১৯ সালে। ওই বছরের ২৫ আগস্ট প্রথম এমআইসিএস পদ্ধতিতে ২-২.৫ ইঞ্চি ছিদ্র করে হার্টের অপারেশন শুরু করেন তিনি।

অস্ত্রোপচার সফল হওয়া ও সাহসী পদক্ষেপ নেয়ায় টি ও ওয়াই পি-২০১৯ পদক পেয়েছেন চিকিৎসক সিয়াম।

ডাক্তার আশরাফুল হক সিয়াম

এ প্রসঙ্গে ডা. সিয়াম বলেন, ’হার্টের ডাবল ভাল্ব অপারেশন অত্যন্ত জটিল। এমআইসিএস পদ্ধতিতে মাত্র ২-৩ ইঞ্চি ছিদ্র করে ভাল্ব প্রতিস্থাপন সারাবিশ্বে অত্যন্ত বিরল। গত ২৫ মে আমি-সহ ১০ জন চিকিৎসকের একটি দল চার থেকে পাঁচ ঘণ্টায় হাসিনা বেগম (৩০) নামের এক রোগীর দেহে সফলভাবে অস্ত্রোপচার সম্পন্ন করি। নিজের ওপর কনফিডেন্স ছিল। আমার টিমের ওপর কনফিডেন্স ছিল, যে আমরা পারব এবং স্মুথভাবেই আমরা করেছি। কোনো ধরনের ঝামেলা ছাড়াই আমরা সফল হয়েছি। কোনো সমস্যা হয়নি।’

তিনি আরও বলেন ”মিনিমালি ইনভেসিভ কার্ডিয়াক সার্জারির সবচেয়ে নিরাপদ বিষয়টি হলো বুকের সব হাড় কাটতে হয় না। কাটা-ছেড়া না থাকায় পরবর্তী হাড় জোড়া লাগানোর কোনো বিষয় থাকে না। ব্যাথা অনুভব কম হয়। রক্তক্ষরণও কম হয়। অস্ত্রোপচাররের পরবর্তী সময় যত দ্রুত সুস্থ হওয়া যায়, সেটার জন্য মিনিমালি ইনভেসিভ কার্ডিয়াক সার্জারির বেশ ভালো।”

এমন মাইলফলক তৈরিতে দেশের সরকার প্রধানের প্রতিও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে চিকিৎসক দলের প্রধান ডাক্তার সিয়াম বলেন, আমরা যে নতুন কিছু করবো বিশেষ করে বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো এমআইসিএস পদ্ধতিতে হার্টের ডাবল ভাল্ব প্রতিস্থাপন- সেটা প্রধানমন্ত্রী (বাংলাদেশ) শেখ হাসিনা জানতেন। তিনি সার্বক্ষণিক নজরদারি করেছেন অস্ত্রোপচারের শুরু থেকে রোগী পুরোপুরি সুস্থ হওয়া পর্যন্ত।

সিয়াম আরো বলেন, শেখ হাসিনা সার্বিক সহযোগিতা করেছেন। প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত তহবিল থেকে যন্ত্রপাতি কিনে দিয়েছেন। তার এই অবদানের কারণেই আমরা এমআইসিএস পদ্ধতির অস্ত্রোপচারটি সফলভাবে করতে পেরেছি। এটা সরকারের বড় সহযোগিতা। আমাদের এই সফলতা বাংলাদেশ সরকারের জন্যও গর্বের।”

প্রধানের নেতৃত্বে অন্যান্য চিকিৎসকরা অস্ত্রপচার করছেন

ওপেন হার্ট সার্জারির পরিবর্তে মাত্র ২-৩ ইঞ্চি ছিদ্র করে এমআইসিএস পদ্ধতিতে দুটি ডাবল ভাল্ব প্রতিস্থাপন হওয়ার পর মাত্র ৫ দিনে সুস্থ স্ত্রীকে দেখে আনন্দ ধরে রাখতে পারছেন না হাসিনা বেগমের পরিবার। অস্ত্রোপচারের আগে যে ভয় ছিল – তা এভাবে উবে যাবে তা যেন ভাবনাতেও ছিলোনা তার পরিবারের।

এ প্রসঙ্গে হাসিনা বেগমের স্বামী বলেন, ‘অপারেশন নিয়ে খুব টেনশনে ছিলাম। কিন্তু এখন আর টেনশন নাই। আমার স্ত্রী সুস্থ।। বাংলাদেশে এমন চিকিৎসা আছে আমি তা আগে জানতাম না। নিজের দেশে এমন স্বাস্থ্যসেবা থাকতে নিশ্চয়ই কেউ আর হার্টের ভাল্ব প্রতিস্থাপনে বিদেশে যাবে না।’

উল্লেখ্য, ডাঃ সিয়াম পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী এনামুল হক শামীম এর ছোট ভাই। তার আরেক ভাই বাংলাদেশ সেনা বাহিনীর বিগ্রেডিয়ার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *