সাম্প্রদায়িক ভ্রান্তি : ভারতের কর্ণাটকে মুছে যাচ্ছে টিপু সুলতানের নাম

দক্ষিণ ভারতের মহীশূরের রাজা টিপু সুলতান ভারতের স্বাধীনতার রক্ষায় যুদ্ধ করতে করতে শহীদ হয়েছিলেন। কর্ণাটকের পাঠ্যপুস্তকে এভাবেই টিপু সুলতানের গৌরবোজ্জল ইতিহাস বর্ণীত আছে। তবে বর্তমান বিজেপি সরকার টিপু সুলতানের বিরুদ্ধে কিছু অভিযোগ তুলে পাঠ্যপুস্তক থেকে তার নাম তুলে দেয়ার কথা ভাবছে।

ইতিমধ্যে কর্ণাটক রাজ্যে টিপু সুলতানের জন্ম-জযন্তী পালন বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। সেই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ইয়েদুরাপ্পাসহ বিজেপি নেতাদের অভিযোগ- টিপু সুলতান হিন্দুদের হত্যা করেছিলেন। তাদের দাবি, ”কুর্গ বা মালাবার উপকূলের যুদ্ধে লক্ষ লক্ষ হিন্দুকে মেরে ফেলেছিলেন টিপু সুলতান।

তবে মহীশূর বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক সেবাস্টিয়ান যোসেফ এর বিরোধীতা করে বলেন। মালাবার যুদ্ধটি ঐতিহাসিক সত্য। তবে এরকম তথ্য পাওয়া যায় না, যে তিনি নির্দিষ্টভাবে হিন্দুদের ওপরেই অত্যাচার করেছিলেন। সেটা ছিলো দুই রাজ্যের যুদ্ধ। যেখানে দুই পক্ষেই মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। স্বাভাবিক ভাবেই মালাবার ছিলো হিন্দু রাজ্য। তাই সেখানে হিন্দু যোদ্ধারদের মৃত্যু হয়েছে।

বিজেপি এবং হিন্দু পুনরুত্থানবাদী সংগঠন রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ বা আরএসএস মনে করে টিপু সুলতান কুর্গ, মালাবার সহ নানা এলাকায় কয়েক লক্ষ হিন্দুকে মেরে ফেলেছিলেন এবং বলপূর্বক ধর্মান্তরিত করেছিলেন।

এ বিষয়ে অধ্যাপক যোসেফ বলেন, মহাভারতের কাহিনিতে তো যারা নিহত হয়েছিলেন, তারাও হিন্দুই ছিলেন। আবার মারাঠারা যখন মহীশূর দখল করতে এসেছিল, তখন তারা অতি পবিত্র হিন্দু তীর্থ শৃঙ্গেরি মঠ ধ্বংস করে দিয়েছিল। এই হত্যাকাণ্ডের জন্য বিজেপি কাকে দায়ী করবে?

তিনি আরো বলেন, মালাবার যুদ্ধের সময় টিপু সুলতানের সেনাপতি ছিলেন শ্রীনিবাস রাও – তিনি হিন্দু। টিপু সুলতান যুদ্ধে গেলে পুরো রাজ্য চালাতেন একজন হিন্দু – পুন্নাইয়া। সেই শ্রীনিবাস রাও বা পুন্নাইয়া হিন্দুদের ওপর অত্যচার চালিয়েছিলেন এটা কি বিশ্বাসযোগ্য?

তিনি বলেন, বিজেপি চাচ্ছে টিপু সুলতানকে খলনায়কে পরিনত করতে। যার কারণটিও রাজনৈতিক।

উল্লেখ্য, টিপু সুলতানের মৃত্যুর পর তার ১২জন পুত্র এবং পরিবার পরিজন সবাইকে কলকাতায় পাঠিয়ে দেয় ব্রিটিশ সরকার। সেই থেকে কলকাতাতেই টিপুর পরিবারের বসবাস। শহরের সবথেকে পরিচিত মসজিদ ‘টিপু সুলতান মসজিদ’ যেমন এই কলকাতাতেই, তেমনই তার পুত্র আনোয়ার শাহ এবং পরিবারের আরও কয়েকজনের নামে রয়েছে শহরের বড় বড় কয়েকটি রাস্তার নাম। তবে বিজেপি এখন এগুলো নিয়েও প্রশ্ন তুলছে।

আরো দেখুন

Leave a Comment