শীতকালে খাদ্য হিসেবে যা উপযুক্ত

শীতকাল সবার কাছেই ভালো লাগে। পিকনিক, নানান জায়গায় ভ্রমণ, শীতকাল মানেই কম্বলের মধ্যে থেকে আলতো উঁকি, কুয়াশা মাখা ভোর, ঘাসের ডগায় শিশিরের পরশ, হিমেল হাওয়া, মিষ্টি রোদ্দুর এর সাথে গরম গরম খাবার ও পানীয়!

তবে এই সময়ের কিছু নেতিবাচক দিকও রয়েছে। শীতকালে ত্বকে ফাটল ধরে, সর্দি- কাশি, ভাইরাস ফ্লু, শ্বাসকষ্টসহ অন্যান্য ইনফেকশন হয়ে থাকে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও এ সময় হ্রাস পায়।

তাই এই সময় নিজের শরীরের প্রতি যত্ন নিতে ও সুস্থ থাকতে স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণ করা বাঞ্চনীয়। চলুন জেনে নেওয়া যাক শীতকালের প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যকর খাবারগুলোর বিষয়ে-

পালং শাক:

দেহের সুস্থতায় সবুজ শাক-সবজি সবসময়ই গ্রহণ করা প্রয়োজন। বিশেষত, শীতকালে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করতে শাক-সবজি গ্রহণ জরুরী। পালং শাক মানব দেহে অত্যন্ত উপকারি। আয়রন, ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়ামের দুর্দান্ত উৎস পালং মাক। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতে কার্যকরি সহায়ক হিসেবে কাজ করে।

ঘি ও মাখন:

মানব দেহের জন্য ঘি বেশ উপকারি খাদ্য। ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিড থাকায় শীতকালে ঘি দেহের তাপমাত্রা বৃদ্ধি করে। মাখনেও ক্যালোরি থাকে, যা দেহের তাপমাত্রাকে সঠিক রাখতে সহায়তা করে।

বাদাম:

কাজুবাদামে প্রচুর পরিমাণ মিনারেল, ভিটামিন এবং ফ্যাটি অ্যাসিডের সমাহার রয়েছে বাদামে। দেহের ত্বক ভাল রাখে, স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। ঠান্ডা লাগা থেকে সুরক্ষাসহ হৃদরোগ প্রতিরোধ করে, দেহের তাপমাত্রা বাড়ায় এবং সুস্থতা সাহায্য করে থাকে।

আদা ও রসুন:

যে কোনও খাবারের স্বাদ বাড়াতে আদা ও রসুনের জুড়ি মেলা ভাড়। এ মশলা একাই একশো তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। শুধু তাই নয় এগুলো শরীরকে উষ্ণ রাখে একই সাথে কোলেস্টেরল হ্রাসে সহায়তা করে। সর্দি-কাশি ও হাঁপানি প্রতিরোধকারী হিসেবে কাজ করে। রান্নার সাথে এগুলোও কাঁচাও খাওয়া যায়।

ডার্ক চকোলেট:

চকোলেট খেতে সব বয়সের মানুষের কাছে ভালবাসে! এটি ঠান্ডা লাগা থেকে সুরক্ষায় কার্যকরি ভূমিকা রাখে। দেহের তাপমাত্রা বৃদ্ধির পাশাপাশি মানসিক অবসাদ দূরীকরণে বেশ কাজ দেয়।

মাছ, মাংস, ডিম:

মাছে ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড ও জিঙ্ক থাকায় সংক্রমণ প্রতিরোধক হিসেবে বেশ কাজ করে। মাংসে থাকা আয়রন শরীরের উষ্ণতা বজায় রাখে। মাছ, মাংসের সাথে দুধ, ডিম ও পনির ভিটামিন বি ১২ এর দুর্দান্ত উৎস। ভিটামিন বি ১২ ক্লান্তি দূরীকরণের এক মহা ওষুধ।

ভিটামিন সি:

খাদ্য তালিকায় মিষ্টি আলু, টমেটো, লাল মরিচ ও সাইট্রাস ফল খাদ্য তালিকায় রাখুর। এগুলোতে ভিটামিন সি রয়েছে, যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ও শক্তি বৃদ্ধিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। যারা নিয়মিত ব্যায়াম করে তাদের জন্য এগুলো খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

আরো দেখুন

Leave a Comment