বয়স ৩০ হওয়ার আগে যে ৯ টি জিনিস জানা দরকার

Fist Hand

আপনার বয়স যখন ৩০ বছর হবে তখনই আপনি আপনার বাস্তব জীবনটাকে অনুভব করতে পারবেন। বয়স এখন যাই হোক না কেন ৩০ এর আগে আপনার শিখতেই হবে। বা আপনার ৩০ বছরের আগে আপনার কাছে থাকতে হবে বা অর্জন করতে হবে। ৩০ বছরের আগে যা আপনাকে অর্জন করতে হবে বা শিখতে হবে।

গাড়ি চালানো শিখা

গাড়ি চালানো একটি বড় ধরনের দক্ষতা। আর প্রতিটি ছেলেকেই গাড়ি ড্রাইভ করা বা গাড়ি চালানো শিখার দরকার বয়স ৩০ হওয়ার আগেই। আপনি যখন অনেক টাকা আয় করে নিজের গাড়ি নিজে চালান তাহলেই না আপনাকে দেখতে ক্লাস লাগবে।নিজের গাড়ি নিজে চালানোর ব্যক্তিত্বই আলাদা। যা আপনাকে ৩০ বছর বয়সের আগেই শিখতে হবে।

ভাষা শিখা

খেয়াল করে দেখবেন বিদেশ থেকে কোনো লোক নিজ দেশে এসে বাংলা ভাষা শিখে বাংলায় কথা বলতে পারে তখন তারা অনেক খুশি হয়। কারণ তারা তখন আমাদের মতো করে আমাদের এলাকাটা দেখতে পারে ও আমাদের মতো করে অনুভব করতে পারে । পৃথিবীতে অনেক মানুষ আছে ও অনেক দেশ আছে তাদের সাথে মিশতে হলে তাদেরকে বুঝতে হলে নতুন ভাষা শিখা জরুরী। বাংলা, ইংরেজি ও হিন্দির পাশাপাশি বিদেশি যে কোন একটি ভাষা জানা থাকলে আপনার কাছে ভালো লাগবে। নতুন ভাষা জানলে ব্রেনের জন্যও ভালো।

দাবা খেলা শিখা

আপনি কী কখনো দাবা খেলেছেন। অনেকের বয়স ৩০ বছর অতিক্রম করলেও দাবা খেলতে পারে না। আপনি যদি কাইকে খোঁজে পান যে সে দাবা খেলতে পারে তবে একবার হলেও তার সাথে দাবা খেলায় যে কোন একটি ম্যাচ জেতার চেষ্টা করুন। যাতে আপনি তাকে চেকমেট দিতে পারেন। দাবা মেধার বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

অন্তত তিন দেশ ভ্রমণ

আপনার বয়স ৩০ বছর হওয়ার আগে অন্তত তিনটি দেশ ভ্রমণ করুন। যে কোন তিন দেশ ভ্রমণ করলে অনেক অভিজ্ঞতা হবে। নতুন জায়গা, নতুন নতুন মানুষ ও নতুন নতুন খাবার খেলে আপনার একটা আলাদ অভিজ্ঞতা হবে। যা বয়স ৩০ বছরের আগে করতে হবে।

রক্তদান করা

আপনার বয়স ৩০ বছর হওয়ারর আগেই রক্তদান করতে হবে। ডাক্তাররাও বলেন একজন সুস্থ মানুষ চার মাস অন্তর অন্তর রক্ত দিতে পারে। রক্তদান করলে বডি সিস্টেম ভালো থাকে।

অন্তত একটি বাদ্যযন্ত্র বাজানো শিখুন

আপনার বয়স ৩০ বছর হওয়ার আগে যে কোনো একটি গান গিটার বা পিয়ানোতে বাজানো শিখে নেন। আপনি যে কোন গান গিটার বা পিয়ানো বা যে কোনো একটি বাদ্য যন্ত্রের মাধ্যমে বাজাতে পারেন তাহলে আপনি একজন আকর্ষণীয় ব্যক্তি হয়ে উঠবেন।

নির্দিষ্ট পারফিউম বা সেন্ট

নিজের জন্য আলাদা একটি পারফিউম বা সেন্ট খুঁজুন। শরীরে মাখলে যেন ইউনিক সুগন্ধ বের হয়। ওই নির্দিষ্ট সেন্ট বা পারফিউমটি নিয়মিত শরীরে মাখুন। ওই সেন্ট বা পারফিউমটিকে আপনার পার্টনার বানিয়ে ফেলুন যা আপনার আলাদা পরিচয় বহন করতে। আর সেন্ট বা পারফিউম কেনার সময় অবশ্যই দাবিটা কিনবেন। যেটি আপনাকে আলাদা পরিচয় দেবে।

দামি ঘড়ি কিনুন

সেন্টের মতো হাতের ঘড়িও গুরুত্বপূর্ণ। বয়স ৩০ বছরের আগে দামী একটি হাত ঘড়ি কেনার চেষ্টা করবেন। কারণ একটি ভালো ব্রান্ডের ঘড়ি আপনার ব্যক্তিত্ব বাড়িয়ে দিতে সহায়ক হবে।

অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী

বয়স ৩০ বছরের আগে আর্থনৈতিক মুক্তি পাওয়া একটু কঠিন। তবে অনেক শ্রম দিয়ে বয়স ৩০ বছরের আগেই অনেক টাকা আয় করতে হবে যাতে বয়স ৩০ বছরের পর আর টাকা আয়ের দিকে তাকিয়ে থাকতে না হয়। বয়স ৩০ বছরের আগেই আপনাকে রিস্ক নিতে হবে বড় কিছু হওয়ার জন্য। এর পর বড় রিস্ক নেওয়া আপনার জন্য কঠিন হবে।

আরো দেখুন

Leave a Comment