ফার্স্ট লেডি কী, তারা কী বেতন পান?

ফার্স্ট লেডি

ফার্স্ট লেডি শব্দটার সঙ্গে বিরাট এক মর্যাদা জড়িত। আমেরিকার সব চেয়ে ক্ষমতার স্থান হোয়াইট হাউজের এক বাসিন্দাকে বুঝানো হয়।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তথা আমেরিকার প্রেসিডেন্টের স্ত্রীর পদমর্যাদার নাম ফার্স্ট লেডি। স্বামীর সাথে তারা হোয়াইট হাউসে বাস করে  প্রেসিডেন্ট পদে সুচারুভাবে দায়িত্ব পালনে স্বামীকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করেন ফার্স্ট লেডি।

ডাকা হতো না বিশেষ কোনো নামে: 

মজার ব্যাপার হলো শুরুর দিকে প্রেসিডেন্টের সহধর্মিনীকে বিশেষ কোনো নামে ডাকা হতো না। প্রথম মার্কিন প্রেসিডেন্ট জর্জ ওয়াশিংটনের স্ত্রীর পদবী ছিল লেডি ওয়াশিংটন। তাকে ফার্স্ট লেডি ডাকা হতো না।

কুইন অব দ্য হোয়াইট হাউস:

ওই সময়ে নিজস্ব দক্ষতা, যোগ্যতা, সক্ষমতা ও গ্রহণযোগ্যতা মোতাবেক লেডি, মিসেস প্রেসিডেন্ট, মিসেস প্রেসিডেন্ট্রেস বা কুইন অব দ্য হোয়াইট হাউস নামে তাদের ডাকা হতো।

ফার্স্ট লেডির রীতি চালু:

ইতিহাস থেকে জানা যায়, ১৮৪০ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ফার্স্ট লেডি পদবীর রীতি চালু হয়। যুক্তরাষ্ট্রের ওই সময়ের প্রেসিডেন্ট জ্যাকারি টেইলরের স্ত্রী ছিলেন ডলি মেডিসন। প্রিয়তমা স্ত্রীর মৃত্যুতে রাষ্ট্রীয়ভাবে শোক উদযাপনের সময় তিনি স্ব-লিখিত ও উচ্চ প্রশংসাযুক্ত কবিতায় তাকে ফার্স্ট লেডি হিসেবে আখ্যায়িত করেন।

সর্বপ্রথম লিখিতভাবে ফার্স্ট লেডি শব্দ:

১৮৬৩ সালে একটি প্রকাশনাতে সর্বপ্রথম লিখিতভাবে ফার্স্ট লেডি শব্দটির অস্তিত্ব পাওয়া যায়। ফার্স্ট লেডি কোনো নির্বাচিত পদবী না এমন কি কোনো সরকারি দায়িত্ব পালন করেন না, বেতনও পান না। তবে নানা ধরনের সরকারি কাজ ও অনুষ্ঠানে অংশ নেন। এসব কাজে তাকে সহায়তা করার জন্য স্টাফও থাকে।

অন্য নারীদের ফার্স্ট লেডি’র মর্যাদা:

সবচেয়ে মজার ব্যাপার হচ্ছে, অতীতে অন্য নারীও ফার্স্ট লেডি’র মর্যাদা পেয়েছেন।যেমন-প্রেসিডেন্টকন্যা মায়ের অনিচ্ছাজ্ঞাপন, অক্ষমতাজনিত কারণে শূন্যস্থান পূরণে বিকল্পভাবে ফার্স্ট লেডির দায়িত্ব পালন করেছেন। এছাড়া প্রেসিডেন্ট বিপত্নীক বা কুমার হলে হোয়াইট হাউসে বসবাসরত অন্য নারী এ দায়িত্ব পালন করতেন।

বর্তমানে বিশ্বের সর্বোচ্চ ক্ষমতাধর রাষ্ট্র যুক্তরাষ্ট্রের ৪৫তম প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও তার তৃতীয় স্ত্রী মেলানিয়া ট্রাম্প ব্যাপক উৎসাহের সঙ্গে ফার্স্ট লেডির মর্যাদা উপভোগ করছেন।

ব্যতিক্রমী নিয়ম :

পশ্চিমা সংবাদমাধ্যম ও সংবাদ সংস্থাগুলো প্রায়ই অন্য দেশের প্রেসিডেন্টের স্ত্রীকে ফার্স্ট লেডি হিসেবে ব্যক্ত করে। তবে, কোনো দেশে যদি প্রেসিডেন্টের স্ত্রীর নির্দিষ্ট উপাধি থাকে, তাহলে এ নিয়মের ব্যতিক্রম হয়।

বিশ্বের কিছু দেশের রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে নারীরা এগিয়ে রয়েছেন। সেক্ষেত্রে তাদের স্বামী অর্থাৎ পুরুষদের ক্ষেত্রে লিঙ্গ বৈপরীত্য হিসেবে ফার্স্ট জেন্টেলম্যান উপাধি দেয়া হয়।

যে উপাধি জুটল না ক্লিনটনের কপালে: 

২০১৬ সালের নির্বাচনে ডেমোক্রেট নেতা হিলারি ক্লিনটন প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলে মিস্টার বিল ক্লিনটন হতেন প্রথম মার্কিন ফার্স্ট জেন্টেলম্যান। তবে হিলারি ট্রাম্পের কাছে হেরে যাওয়ায় ফার্স্ট জেন্টেলম্যান উপাধি ক্লিনটনের কপালে জুটেনি।

আরো দেখুন

Leave a Comment