প্রেমিকা পেতে যে পরীক্ষা দিতে হয় বাবুই পাখির

প্রেমিকা পেতে যে পরীক্ষা দিতে হয় বাবুই পাখির

প্রেমিকা পেতে সকল বাবুই পাখিকে মজবুত বাসা তৈরির পরীক্ষা দিতে হয় ।

বাবুই পাখি তার বাসা তৈরি করার পর প্রেমিকা বা সঙ্গী খুঁজতে বের হয়।

বাসা তৈরির কাজ অর্ধেক হতেই স্ত্রী বাবুইকে কাঙ্ক্ষিত বাসা দেখায়। কারণ বাসা পছন্দ হলেই কেবল তাদের সম্পর্ক গড়ে উঠবে।

অতপর স্ত্রী বাবুই পাখির বাসা পছন্দ হলে বাকি কাজ শেষ করতে পুরুষ বাবুই পাখির সময় লাগে মাত্র চার থেকে পাঁচদিন।

পুরুষ বাবুই পাখি স্ত্রী বাবুই পাখিকে সাথী বানানোর জন্য ভাব-ভালোবাসা নিবেদন করে।

তবে প্রেমিক বাবুই পাখি যতই ভাব-ভালোবাসা প্রকাশ করুক না কেন প্রেমিকা বাবুই পাখির ডিম দেওয়ার সাথে সাথেই প্রেমিক বাবুই পাখি আবার খুঁজতে থাকে অন্য সঙ্গী।

পুনরায় নতুন করে বাসা তৈরি করতে হয় পুরুষ বাবুই পাখির।

পুরুষ বাবুই পাখির এভাবে এক মৌসুমে প্রায় পাঁচ ছয়টি বাসা তৈরি করতে হয় ।

বাবুই পাখির বাসা যেমন দৃষ্টিনন্দন তেমনি মজবুত।

শক্ত বুননের বাবুই পাখির বাসা শিল্পের অনন্য সৃষ্টি।

তালপাতা, ঝাউ, খড়, ও কাশবনের লতাপাতা দিয়েই বাবুই পাখি উঁচু তালগাছে বাসা বাঁধে।

সেই বাসা দেখতে বেশ আকর্ষণীয় ও মজবুত হয় এবং প্রবল ঝড়েও তা ভেঙ্গে পড়ে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *