তৃতীয় নেত্র বা থার্ড আই কি?

তৃতীয় নেত্র বা থার্ড আই কি?

প্রত্যেকেরই দুটো চোখ রয়েছে। কিন্তু এই দুটো চোখ বাদেও আমাদের আরও একটি অদৃশ্য চোখ রয়েছে। যাকে বলা হয় তৃতীয় নেত্র বা থার্ড আই। এর শক্তি অনেক। এই থার্ড আই বডির ছয় চক্রের একটি। এটি দুই ভ্রূর মাঝ বরাবর থাকে। এই চোখ বাইরে থেকে দেখা যায় না। এটি থাকে ভেতরের দিকে।

যদি তৃতীয় চোখের এই স্থানকে জাগ্রত করতে পারেন তবেই হয়ে উঠতে পারবেন সাধারণের থেকে অসাধারণ। ভবিষ্যত দেখতে পারবেন ও অন্যের মনের কথা জানতে পারবেন। তখন যে কাউকেই নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন। প্রশ্ন হল, কি করে থার্ড আই খুলবেন? সাধারণত এই চোখ খোলার জন্য দীর্ঘ মেডিটেশনের প্রয়োজন।

ইন্সটিউট অফ হার্ড ম্যাথের একদল গবেষক বলেন, হিউম্যান হার্ট শরীরের সব থেকে শক্তিশালী অর্গ্যান। এর আগে সবাই জানত, সব থেকে শক্তিশালী অঙ্গ হল মানুষের মন। রিসার্স করার পর বিজ্ঞানিরাও অবাক হয়ে গেছে, এই মনের শক্তি ক্ষমতা দেখে। ইলেক্ট্রিক্যাললি মন ব্রেনের থেকেও ১০০ হাজার গুণ বেশি শক্তিশালী।

আর ম্যাগনেটিকের দিক থেকে মন ব্রেনের থেকে ৫ হাজার গুণ বেশি শক্তিশালী। যদি ব্রেনের শক্তি আর হার্টের শক্তিকে এক করে দেয়া যায় তবে এই দুই শক্তিশালী অঙ্গের সব শক্তি মিলে তৃতীয় চোখও খুলে যাবে।

এর জন্য আলাদা কিছুই করতে হবে না। আগেও যেমন মেডিটেশন করতেন তেমনি বসে যাবেন। শুধু খেয়াল রাখবেন যাতে পিঠের মেরুদন্ড সোজা থাকে। এরপর সম্পূর্ণ ফোকাসকে হার্টের মধ্যে নিয়ে আসতে হবে। আর অনুভব করতে হবে যেন হার্ট থেকে শক্তি বের হয়।

এসব শক্তি উপরের দিকে উঠে যাচ্ছে তৃতীয় চোখের জায়গায়। এটা যখন করবেন তখন মন থেকে সব ধরনের চিন্তাশক্তি চলে যাবে। তখন মন একদম ফাঁকা হয়ে যাবে। কারণ সম্পূর্ণ ফোকাস থাকবে হার্টের মধ্যে।

কি মনে হচ্ছে মেডিটেশনের সেই মুহূর্তে তা অনুভব করতে হবে। বেশি নয় প্রত্যেক দিন ১০ মিনিট এই মেডিটেশন করতে হবে। এর কিছুদিন পরই দেখতে পাবেন মিরাকেল।

মেডিটেশন করার যেসব লাভ তা তো পাবেনই। তার সঙ্গে আপনার থার্ড আইও জাগ্রত হবে। মনে প্রশ্ন আসতে পারে, এই মেডিটেশন কতদিন করতে হবে। আসলে ব্যাপার হল, কত দিনে সফল হবেন সেটা নির্ভর করবে আপনার উপরে। থার্ড আই খোলার জন্য মনোভাব কতটা গভীর এর উপর নির্ভর করে। ইচ্ছাশক্তি যত গভীর হবে তত তাড়াতাড়ি এই চোখ খুলে যাবে।

সূত্রঃ স্বরুপ দর্শন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *